শাকিব-জিতের লড়াইয়ে দেশের প্রেক্ষাগৃহ দখলে পিছিয়ে যে ছবি (ভিডিও)

Bhaijaan Vs Sultan
Bhaijaan Vs Sultan

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান এবং পশ্চিমবঙ্গের সুপারস্টার জিৎ৷ দুইজনেই এর আগে বেশ কয়েকবার বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে মুখোমুখি হয়েছিলেন নিজেদের যৌথ প্রযোজনার ছবি নিয়ে। বক্স অফিসের দৌড়ে দুইজনের ছবি ভালো ব্যবসা করলেও হিসেবে দেখা যায় নিজের দেশের জনপ্রিয়তাই শাকিব খানের ছবি গুলোকে এগিয়ে রেখেছিল জিতের ছবির তুলনায়। শুধু ব্যবসায়িক সফলতায় নয় প্রেক্ষাগৃহ দখলের সংখ্যাতেও এগিয়ে ছিলেন শাকিব খান।

এদিকে গেল রোজার ঈদে পশ্চিমবঙ্গে মুক্তি পাওয়া জিৎ শাকিবের একক প্রযোজনার ছবিতে বক্স অফিস এবং হল সংখ্যায় শাকিবের তুলনায় জিতেই এগিয়ে ছিলেন। কেননা নিজের দেশে জিতেরও জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী। তাই শাকিব খান সেখানে এগিয়ে থাকতে না পারলেও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান দাবি করেছেন তার ছবিটি ব্যবসা করেছে অনেক ভালো।

সেই রেশ ধরেই ছবি দুইটি এবার আমদানি নীতিতে মুক্তি পাচ্ছে বাংলাদেশেও। শাকিবের ‘ভাইজান এলো রে’ আমদানি করছে এন ইউ আহমেদ ট্রেডার্স এবং জিতের ‘সুলতান দ্য সেভিয়ার’ আনছে জাজ মাল্টিমিডিয়া। দুই ছবির আমাদানি কারক জানায় ছবি দুইটি সেন্সরে জমা পরেছে, এই সপ্তাহের মধ্যে সেন্সর ছাড়পত্র পাবে এবং আসছে শুক্রবার ২০শে জুলাই ছবি দুইটি মুক্তি দিবে।

Shakib Khan Bhaijaan Jeet Sultan
Shakib Khan Bhaijaan Jeet Sultan

কিন্তু এদিকে দেশে ছবি দুইটির বক্স অফিসের লড়াই জমিয়ে না উঠতেই জমিয়ে উঠেছে প্রেক্ষাগৃহ দখলের লড়াই। আর সেদিক থেকে এবার যেন নিজ দেশেই পিছিয়ে পড়ছেন শাকিব খান। কেননা দেশের নামি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া সুলতান ছবিটি আমদানি করায় সিংহভাগ হলেই যাচ্ছে জিৎ এর দখলে। তাই হল দখলের লড়াইয়ে পিছিয়েই পড়ছে শাকিব খানের ভাইজান।

এ বিষয়ে জাজ মাল্টিমিডিয়া কর্ণধার আবদুল আজিজ বলেন, ২০ জুলাই ‘সুলতান’ মুক্তি পাবে বাংলাদেশের শতাধিক সিনেমা হলে। হল বুকিংয়ের প্রক্রিয়া চলমান। রোজার ঈদে ‘সুলতান’ কলকাতায় মুক্তি পেয়েছে। খুব ভালো ব্যবসা করেছে ছবিটি। জোর গলায় তিনি বলেন, বাংলাদেশের দর্শকদের কাছে ছবিটি নিয়ে ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে। আমি মনে করি সুলতানের সঙ্গে যে ছবিই আসবে সেটি মার খাবে!

এদিকে ‘ভাইজান এলো রে’ ছবির পক্ষে এন ইউ আহমেদ ট্রেডার্স থেকে এক কর্মকর্তা বলেন, প্রত্যেকের ব্যবসায়িক পলিসি আলাদা থাকে। অনেকেই কমিশনে ছবি দেন। ছবি চালিয়ে টাকা নেন। কিন্তু আমরা এমজি ছাড়া ছবি দিচ্ছি না। সেজন্য আমরা ‘ভাইজান এলো রে’ যদি ৫০ হলে মুক্তি দিতে পারি সেদিক থেকে হ্যাপী। তিনি বলেন, এর আগে বাইরের দেশের নায়কের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় শাকিব খানের ছবি কেমন চলেছে এটা সবাই জানে। আমরা বিশ্বাস করি, কম প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেলেও ‘ভাইজান এলো রে’ অতীতের ছবিগুলোর থেকে আরও ভালো চলবে।

ভিডিওঃ

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here