শাকিব খানের ছবি মানেই জটিলতা, যে কারণে মুক্তি আটকে যাচ্ছে নাকবের

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান। তার ছবি মুক্তি মানেই দেশের সিনেমা হলে দর্শকদের উপচে পড়া ভিড় এবং প্রেক্ষাগৃহ মালিকদের সফল ব্যবসা। কিন্তু বর্তমানে দেশে তার ছবি পাওয়া যেন একটা বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেননা ছবির শুটিং থেকে শুরু করে মুক্তি পাওয়ার আগ পর্যন্ত পদে পদে তার ছবিকে আটকানোর চেষ্টা করা হয়।

গেল কয়েকদিন আগে ‘শাহেনশাহ’ ছবির মহরতে শাকিব খান নিজেই এই কথা গুলো বলেছিলেন। কেননা অতি সম্প্রতি শাকিব খান অভিনীত দেশের ছবি সহ বেশ কিছু ভিনদেশের ছবি মুক্তিতে নানা জটিলতার সৃষ্টি হয়। অবশ্য পরে সব ছবি মুক্তি পেলেও ঘোষণা অনুযায়ী নির্দিষ্ট তারিখে মুক্তি না পাওয়ায় ছবির প্রচারণা, হল বুকিং সহ পরতে হয়েছিল নানা জটিলতায়। এ নিয়ে শোবিজ অঙ্গনে খবর প্রকাশের মাধ্যমে জটিলতাকারীদের এবং তাদের মাধ্যম নিয়ে নানা সমালোচনা হলেও থেমে নেই এসব জটিলতা।

কেননা আবারও শুরু হয়েছে শাকিব খানের কলকাতার ছবি ‘নাকাব’ মুক্তি নিয়ে জটিলতা। ছবিটি কলকাতায় মুক্তি পাচ্ছে আগামী ২১শে সেপ্টেম্বর। একই সাথে বাংলাদেশে মুক্তি পাওয়ার কথা দিয়েছিল ছবিটির আমদানি কারক প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া। শুধু তাই নয় ছবিটি ২১ তারিখে মুক্তি উপলক্ষে সিনেমা হল বুকিং এবং বিভিন্ন গণমাধ্যম সহ ফেসবুক পেজে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের প্রচারণা ছিল তুঙ্গে। কিন্তু হঠাতেই যেন থমকে গেল সব কিছু। আবারও ছবিটি মুক্তির দিন ধোঁয়াশা হয়ে গেল।

এ বিষয়ে আমদানি কারক প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আব্দুল আজিজের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তথ্য প্রতিমন্ত্রীর টেবিলে ফাইল আটকে আছে কয়েকদিন ধরে। তিনি স্বাক্ষর না দেওয়া পর্যন্ত কিছুই চূড়ান্ত করে বলা যাচ্ছে না। চেয়েছিলাম ২১ সেপ্টেম্বর পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি একযোগে বাংলাদেশেও মুক্তি দিতে। কিন্তু বাংলাদেশে ওই তারিখে মুক্তি দিতে পারব কিনা এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

তিনি আরও বলেন, আমদানি করে কলকাতার ছবি বাংলাদেশের মুক্তি দিতে তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় পড়তে হয়। এতে যথেষ্ট সময়ের প্রয়োজন। তারপর সেন্সরের চৌকাঠ পেরুনোও সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। তাই সবদিক বিবেচনা করে ২১ সেপ্টেম্বর ‘নাকাব’ বাংলাদেশে মুক্তি নিয়ে সংশয়ের শেষ নেই। তবে শাকিব খান অভিনীত ছবিটির জন্য এখন সিনেমা হল মালিক থেকে শুরু করে দর্শকদের শুধু না জানা অপেক্ষার দিনেই গুনতে হবে।

এদিকে জানা যায়, ‘নাকাব’ ছবিটির বিনিময়ে বাংলাদেশের ‘পাষাণ’ ছবিটি কলকাতায় পাঠানো হচ্ছে। বাংলাদেশের মিম এবং কলকাতার ওম অভিনীত ছবিটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here