তিন শাকিবে বাজবে ঈদ ব্যান্ড দর্শকের কাছে হাইপ তুলবে যে ছবি (ভিডিও)

Shakib Khan Eid Movie 2019
Shakib Khan Movie

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান। ঢাকাই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে তার অভিনীত ছবি মানেই সিনেমা হলে দর্শকদের ভিড়। বরাবরই ঈদে এ নায়কের ছবির আধিক্য লক্ষ্য করা যায়। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়।

আর শাকিবের ছবি নিতে সিনেমা হল মালিকরা বরাবরের মতো আগ্রহ দেখাচ্ছেন। শুধু আগ্রহ দেখাচ্ছেন বললে ভুল হবে, কোন সিনেমা হল মালিক শাকিবের কোন ছবি নেবেন তা নিয়ে রীতিমতো হিসাব-নিকাশ শুরু করে দিয়েছেন।  ২০০৮ সাল থেকেই উৎসবে শাকিবের ছবি পেতে সিনেমা হল মালিকরা মুখিয়ে থাকেন। কারণ তার ছবি মানেই ব্যবসায়িক সফলতার মুখ দেখা। সিনেমা হলের দুর্দিন দূর হওয়া।

Shakib Khan Shahenshah Nolok Password Movie
Shakib Khan Shahenshah Nolok Password Movie

এবারের ঈদে তার অভিনীত তিনটি ছবি মুক্তির কথা জানান বুকিং এজেন্টরা। এগুলো হচ্ছে- পাসওয়ার্ড, নোলক এবং শাহেনশাহ। এর মধ্যে ‘পাসওয়ার্ড’ শাকিবের নিজের প্রযোজিত বিগ বাজেট ও অ্যারেঞ্জমেন্টের ছবি। এতে শাকিবের নায়িকা বুবলী। থাকছেন নায়ক ইমনও। নোলক ছবিতে শাকিবের বিপরীতে নায়িকা ববি আর শাহেনশাহতে আছেন নুসরাত ফারিয়া এবং রোদেলা জান্নাত।

এদিকে শাকিব প্রযোজিত এবং অভিনীত ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির কাজ শুরুর আগেই ঢাকাসহ সারা দেশের প্রায় দুই ডজন সিনেমা হল মালিক ছবিটি বুকিং দিয়ে রেখেছেন। মধুমিতা হলের ব্যবস্থাপক রেজাউল করিম বলেন, শাকিবের ছবি পেলে দর্শক পাওয়া যায়। তাই আমরা তার ছবির জন্য অপেক্ষা করি। ঈদ হলে তো কথাই নেই। এই উৎসবের দিনে শাকিবের ছবি মানে সারা বছরের খরচ তুলে আনা। এবারের ঈদেও আমরা শাকিবের ছবি প্রদর্শন করব। আমাদের সিনেমা হলে ঈদে চলবে ‘পাসওয়ার্ড’। আনন্দ সিনেমা হলের কর্মকর্তা শামসুল আলম বলেন, ঈদ মানেই শাকিবের ছবি। যেহেতু শাকিবের ছবির প্রতি দর্শকের প্রচন্ড আগ্রহ আছে তাই তার ছবি ছাড়া ঈদ-আনন্দ অপূর্ণই থেকে যায়।মানে দেশব্যাপী দর্শক আর প্রদর্শকরা এখনো ঈদ উৎসবে শাকিব জ্বরে আক্রান্ত হন।

Shakib Khan Shahenshah
Shakib Khan Shahenshah

এদিকে শাকিব খান কিন্তু কখনো চান না ঈদে তার একাধিক ছবি মুক্তি পাক। কারণ দেশে সিনেমা হলের সংখ্যা খুবই কম। এ অবস্থায় বেশি ছবি মুক্তি পেলে প্রযোজকরা কাক্সিক্ষত লাভের মুখ দেখা থেকে বঞ্চিত হন।

এবার তো দেশে রয়েছে মাত্র ১৭২টি সিনেমা হল। প্রদর্শক সমিতির উপদেষ্টা মিয়া আলাউদ্দিন বলেন, মূলত ১৭২টি সিনেমা হল থাকলেও বড় বাজেটের ছবি প্রদর্শনের মতো সিনেমা হলের সংখ্যা ৯০-এর বেশি নয়। যদিও ঈদে মৌসুমি সিনেমা হল হিসেবে বন্ধ থাকা ৩০ থেকে ৫০টির মতো সিনেমা হল খুলে, তারপরও এত স্বল্পসংখ্যক সিনেমা হল থাকায় বেশি ছবি মুক্তি দিলে প্রদর্শক-প্রযোজক কেউই প্রকৃত লাভের মুখ দেখেন না। এখন দেখার বিষয় ঈদে আসলে শাকিবের কয়টি ছবি মুক্তি পাবে। প্রদর্শকরা বলছেন, শাকিবের একটি ছবি মুক্তি পেলেও তা শতাধিক হল অতিক্রম করবে।

ভিডিওঃ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here